ঢাকা: সকাল ৬:১৮ মিনিট, রবিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ,গ্রীষ্মকাল, ৬ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি
অপরাধ

দেশে মাদকের তালিকায় যোগ হয়েছে নতুন নাম ‘আইস’ বা ‘ক্রিস্টাল মেথ’

‘আইস’ বা ‘ক্রিস্টাল মেথ’ ভয়াবহ ক্ষতিকারক মাদক

এএনবি নিউজএজেন্সী ডটকমনিজস্ব প্রতিবেদক,এএনবি নিউজএজেন্সী ডটকম:  দেশে মাদকের তালিকায় যোগ হয়েছে নতুন নাম ‘আইস’ বা ‘ক্রিস্টাল মেথ’। প্রায় দুই বছর আগে ঢাকার মোহাম্মদপুরে নিয়মিত অভিযানে ৫ গ্রাম আইসসহ এক যুবককে আটক করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। তখনই আইসের কথা জানা যায়। এরপর ওই যুবকের স্বীকারোক্তিতে জিগাতলার একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় হাসিব বিন মোয়ামের রশিদ নামে এক ব্যক্তিকে।

রশিদ ওই বাসার তলকুঠুরীতে ‘আইস’ তৈরির কারখানা বসিয়ে সবে উৎপাদন শুরু করেছিল বলে জানান মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক খুরশীদ আলম।

তিনি বলেন, রশিদের কাছে ২৯ গ্রাম ‘আইস’ পাওয়া গিয়েছিল। পরে রশিদের স্বীকারোক্তিতে বসুন্ধরা এলাকায় থেকে নাইজেরীয় এক নাগরিককে ৫০০ গ্রাম ‘আইস’ সহ গ্রেপ্তার করা হয়। “ওই কারখানার সন্ধান না পাওয়া গেলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হত,” বলেন খুরশীদ। দুই মাদকের তুলনা করে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা বলেন, “ইয়াবায় এমফিটামিন থাকে পাঁচ ভাগ, আর আইসের পুরোটাই এমফিটামিন। ফলে এটি ইয়াবার চেয়ে অনেকগুণ বেশি ক্ষতিকর এবং অনেক বেশি পরিমাণ প্রতিক্রিয়া তৈরি করে মানবদেহে।”

অধিদপ্তরের প্রধান রাসায়নিক পরীক্ষক দুলাল কৃষ্ণ সাহা বলেন, “মানবদেহে অতি অল্প সময়ে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি করতে পারে এই মাদক। “এই মাদক সেবনে মস্তিষ্কের রক্তনালী ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং এ থেকে রক্তক্ষরণ হতে পারে। এই মাদক সেবনের ফলে স্মৃতি শক্তি লোপ পায়।” আইস বা ক্রিস্টাল মেথে শতভাগ এমফিটামিন থাকায় এটা বিশ্বজুড়েই ভয়ঙ্কর মাদক হিসেবে চিহ্নিত, বলেন তিনি। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক (গোয়েন্দা) মো. মোসাদ্দেক হোসেন রেজা বলেন, দুই বছর ধরে আইস দেশে আসতে শুরু করেছে। গত ৪ নভেম্বরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গেণ্ডারিয়া থেকে ছয়জনকে ৬০০ গ্রাম আইসসহ গ্রেপ্তার করে।

Hur Agency

এমন আরো সংবাদ

হট নিউজটি পড়বেন?
Close
Back to top button