জাতীয়বিশেষ প্রতিবেদন

আগামী জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে ঢাকা সিটির ভোট : ইসি সচিব

ঢাকা সিটি নির্বাচন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, এএনবি নিউজএজেন্সি ডটকম : নির্বাচন কমিশনের সভার পর বিকালে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে ইসি বলেন, এই সিটি ভোট নিয়ে আগামী সপ্তাহে আবার নির্বাচন কমিশনের বৈঠক হতে পারে।

বিকাল ৩টায় সিইসি কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বৈঠকে পাঁচটি বিষয় আলোচনায় ছিল। সভার শুরুতে চার নির্বাচন কমিশনার নিজেদের বক্তব্যও রাখেন।

দুই ঘণ্টারও বেশি সময় বৈঠকের পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনায় সচিব বলেন, “আজকের সভায় নির্বাচন সংক্রান্ত আলোচনা ছিল না। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়নি।”

ঢাকার দুই ভাগে জানুয়ারিতে ভোট করার পরিকল্পনার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন সচিব।

মো. আলমগীর বলেন, “আগেও বলেছি জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির নির্বাচন হবে। দিন তারিখ এখনও ঠিক হয়নি। আগামী কমিশন সভায় বিষয়টি ফাইনাল হবে।”

তিনি জানান, ইভিএমে ভোট হতে হলে ভেটার সংখ্যা, ভোটকক্ষ সংখ্যা বিবেচনায় নিতে হবে। কতখানি প্রস্তুতি, জনবল লাগবে- এসব বিবেচনায় নিয়ে কাজ করতে হবে। নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের পরে কারা প্রার্থী, ব্যালটে তা চূড়ান্ত হয়।

“সুতরাং প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী অনুযায়ী ইভিএম কাস্টমাইজ করতে হবে, সে সময়টা হাতে রেখে ভোটের তারিখ নির্ধারণ করতে হবে। সব অগ্রগতি নিয়ে ডেটটা ঠিক করতে হবে। সেজন্য কমিশন সময় নিচ্ছে, আগামী সপ্তাহে কমিশন সভায় চূড়ান্ত জানতে পারবেন।”

জানুয়ারিকেই ভোটের সবচেয়ে উপযুক্ত সময় ভাবা হচ্ছে বলে জানান সচিব।

তিনি বলেন, “কমিশন মিটিং আগামী সপ্তাহে হবে। সেখানে সিদ্ধান্তের পর তফসিল হবে। জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ আমাদের লাস্ট ডেট, পরের সপ্তাহ যাওয়ার সুযোগ নেই। কমিশন যে সিদ্ধান্ত নেবে তখনই হবে।”

মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়, বাছাই, প্রত্যাহার ও প্রচারণার পর্যাপ্ত সময় দিয়ে ভোটের জন্য সাধারণত ৪০ থেকে ৪৫ দিন সময় রেখে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।

সর্বশেষ ২০১৫ সালেও ৪০ দিন সময় দেওয়া হয়েছিল। এর আগে ঢাকায় ৪৪ দিন সময় দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি ভোটের ‘কাউন্টডাউন’ শুরু হয়েছে নভেম্বরের শেষ ভাগে। আগামী মে মাসের প্রথমার্ধের মধ্যে এ ভোটের আয়োজন করার বাধ্যবাধকতাও রয়েছে ইসির সামনে।

এর মধ্যে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই ভোটের জন্য একটি সুবিধাজনক তারিখ নির্ধারণ করতে হবে নির্বাচন আয়োজনকারী সাংবিধানিক সংস্থাটিকে।

দক্ষ শিক্ষকদের তালিকা ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির নির্বাচন উপলক্ষে প্রাথমিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষকদের তালিকা চেয়েছে ইসি।

মাঠ কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, উত্তর ও দক্ষিণের নির্বাচনে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটের সিদ্ধান্ত হয়।

এজন্য দক্ষ জনবল তৈরির লক্ষ্যে তথ্য প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন শিক্ষকদের হাতে কলমে দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের আরও দুই দিন ডেমোনেস্ট্রেশনসহ ভোটগ্রহণ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করবেন। নির্বাচনী এলাকার সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের জন্য শিক্ষকদের তালিকা পাঠাতে সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের বলা হয়েছে।

এমন আরও সংবাদ

Back to top button