ঢাকা: সকাল ৭:৫৯ মিনিট, মঙ্গলবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ,গ্রীষ্মকাল, ৮ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি
খেলাধুলাজাতীয়বিশেষ প্রতিবেদন

জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটারদের দাবিগুলো নিয়ে বিসিবি প্রধান এর বক্তব্য

ক্রিকেটারদের দাবি সমূহ

এএনবি নিউজএজেন্সি ডটকমক্রীড়া প্রতিবেদক,এএনবি নিউজএজেন্সি ডটকম: ক্রিকেটারদের প্রথম দাবি ছিল ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বা কোয়াবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদত্যাগ। এই দাবির সঙ্গে যদিও বিসিবির সম্পর্ক নেই, তবু কোয়াবের সভাপতি একজন বোর্ড পরিচালক (সাবেক অধিনায়ক নাঈমুর রহমান) বলেই ছিল বেশি প্রশ্ন।

তবে এটি বোর্ডের ব্যাপার নয় বলে কথাই বলতে চাইলেন না নাজমুল হাসান। উল্টো শোনালেন কোয়াবকে তারা স্বীকৃতিই দিতে চাননি একসময়, পরে নাকি নানান অনুরোধে দেন স্বীকৃতি।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে বিতর্কিত ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েজ’ পদ্ধতি চালু করার সময় নাজমুল হাসান বলেছিলেন, “নিশ্চয়তা দিচ্ছি এটি শুধু এবারের জন্যই।” পরে সেই পদ্ধতিই থেকে গেছে, যেখানে ক্রিকেটারদের নিজস্ব দল ও পারিশ্রমিক ঠিক করার স্বাধীনতা নেই। এই দাবি নিয়ে বোর্ড প্রধান জানালেন, এর মধ্যেই তিনি এটিতে সম্মতি দিয়েছেন।

এত বছর চালু ছিল কেন, এই প্রশ্নে বিসিবি প্রধান জানালেন, ক্রিকেটাররা বাতিল চায়নি। যদিও প্রতি মৌসুমের আগে এই পদ্ধতি বাতিলের আকুতি করেছেন ক্রিকেটাররা, সংবাদমাধ্যমে এসেছে সেসব খবর। ক্রিকেটারদের অনুরোধ না রেখে বোর্ড বরাবরই শুনেছে ক্লাবগুলোর দাবি।

এবার বিপিএলের বিশেষ আসরের পর আগামী আসর থেকে আগের মতোই ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিতে পরিচালনার যে দাবি, সেটি নিয়ে নাজমুল হাসান বললেন, “প্রথম দিন থেকেই বলে আসছি, পরের বার থেকে আগের নিয়মে হবে।”

তবে বাস্তবতা হলো, পরের বারের আসর নিয়ে বিসিবি প্রধান অনেকবারই বলেছেন, “পরের টুর্নামেন্ট পরে দেখা যাবে।” ক্রিকেটারদের অনিশ্চয়তা ছিল সেই কারণেই।

বিপিএল নিয়ে ক্রিকেটারদের অন্যতম দাবি, বিদেশি ক্রিকেটারদের সঙ্গে দেশের ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের সামঞ্জস্য। এটি নিয়ে কোনো কথা বলেননি বিসিবি সভাপতি।

ব্রাদাস ইউনিয়নের কাছে গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের পারিশ্রমিকের ৪০ শতাংশ এখনও পাওনা ক্রিকেটারদের। বোর্ড সভাপতির আশ্বাস, আগামী লিগের আগেই টাকা দিয়ে দেওয়া হবে। যদিও বিসিবির নিয়ম অনুযায়ী, এই টাকা অনেক আগেই দেওয়ার কথা।

কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ক্রিকেটারদের সংখ্যা বাড়ানো ও বেতন বাড়ানো নিয়ে তার কথা, “অনেক দেশের চেয়েই আমাদের চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারদের সংখ্যা বেশি। কত জনকে রাখব? ২০০-৩০০ ক্রিকেটারকে টাকা দেব? আর আমরা দায়িত্বে আসার পর কয়েক দফায় বাড়ানো হয়েছে ওদের টাকা।”

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক বাড়ানোর দাবিতে নাজমুল হাসানের অভিমত, “খারাপ দিচ্ছি, তা তো নয়!”

আদতে গত ৬-৭ বছরে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক বেড়েছে সামান্যই। উল্টো কমানো হয়েছে চুক্তিতে রাখা ক্রিকেটারদের সংখ্যা। তাদের পারিশ্রমিকের আরেকটি প্রশ্নে নাজমুল হাসান তাচ্ছিল্য ভরে বলেছেন, “খেলা পারে না… বাজে খেলে… ওদের টাকা দেব না।”

ক্রিকেটারদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দাবি ছিল জাতীয় লিগের পারিশ্রমিক বাড়ানো। এখানে বোর্ড সভাপতি শোনালেন আশ্বাসের কথা।

“প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্যাচ ফি বাড়ানো…. হতে পারে, ব্যাপারটি আপেক্ষিক। ২৫ হাজার থেকে ৩০ হাজার করেছি (দ্বিতীয় স্তরে), ৩৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার করেছি (প্রথম স্তরে)। ওরা তো বলেনি যে আরও বাড়াতে হবে। বাড়ানো যেতে পারে আরও।”

Hur Agency

এমন আরো সংবাদ

Back to top button