রাজনীতি

মেডিকেল চেকআপ শেষে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরলেন এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ দেশে ফিরলেন

এএনবি নিউজএজেন্সি ডটকমনিজস্ব প্রতিবেদক,এএনবি নিউজএজেন্সি ডটকম: বুধবার রাত ৯টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দরে নামেন। বিমানন্দরে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা না বলে বারিধারার বাড়ির পথে রওনা হন তিনি।

জাতীয় পার্টির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিয়মিত মেডিকেল চেকআপ শেষে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরেছেন তাদের চেয়ারম্যান। তার সঙ্গে জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এবং ব্যক্তিগত সহকারী মঞ্জুরুল ইসলামও ফিরেছেন।

বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বিশেষ সহকারী এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এস এম ফয়সল চিশতী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সেন্টু, কেন্দ্রীয় যুগ্ম দপ্তর সম্পাদক এমএ রাজ্জাক খান প্রমুখ।

বাবলু পরে সাংবাদিকদের বলেন, “তিনি (এরশাদ) সুস্থ আছেন। তার শারীরিক অবস্থা ভালো। সিঙ্গাপুর ন্যাশনাল হাসপাতালে তার চিকিৎসা হয়েছে। চিকিৎসকরা তাকে ছাড়পত্র দিয়েছেন। এক মাসের ওষুধ দেওয়া হয়েছে। এক মাস পর সিদ্ধান্ত হবে, আবার যেতে হবে কি না।”

এরশাদ বৃহস্পতিবার থেকে দলের নির্বাচনের সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে বাবলু জানান।

এর আগে সোমবার এরশাদের ফেরার খবর জানিয়ে জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে বক্তব্য এলেও পরে আবার ফেরা পিছিয়ে যাওয়ার কথাও জানানো হয়।

এরশাদের শারীরিক অবস্থা নিয়ে জাতীয় পার্টির নেতাদের কেউও মুখ খুলছেন না।

ভোটের আগে নানা গুঞ্জনের মধ্যে গত ১২ ডিসেম্বর ‘উন্নত চিকিৎসার জন্য’ সিঙ্গাপুরে যান প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ।

সেদিন জাতীয় পার্টির প্রার্থীদের চূড়ান্ত মনোনয়ন ক্ষমতা এরশাদ নতুন মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁর হাতে দিয়ে যান। কিন্তু নিজের অবর্তমানে ‘চেয়ারম্যানের সার্বিক সাংগঠনিক দায়িত্ব’ পালনের দায়িত্ব দিয়ে যান সাবেক মহাসচিব হাওলাদারের হাতে।

জাতীয় পার্টির নেতারা বলে আসছেন, ‘রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ায়’ অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন ৮৮ বছর বয়সী এরশাদ। দেশে থাকতে তাকে নিয়মিত সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে যাওয়া-আসা করতে হচ্ছিল।

২০১৪ সালের নির্বাচনের আগেও তাতে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে এরশাদ নাটকীয় অসুস্থতা নিয়ে সিএমএইচে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে ভর্তি থাকা অবস্থায় তিনি এমপি নির্বাচিত হন এবং পরে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের দায়িত্ব পান।

এবারও একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে জাতীয় পার্টির প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণের সময় ‘অসুস্থ’ এরশাদের সিএমএইচে ভর্তির খবর এলে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়।

জাতীয় পার্টির জোটসঙ্গী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অবশ্য বলেছিলেন, এরশাদের এবারের অসুস্থতা ‘রাজনৈতিক’ নয়; তিনি ‘সত্যিই’ অসুস্থ।

এই অসুস্থতা নিয়ে এরশাদের ভাই জাতীয় পার্টির কো চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছিলেন, এই বয়সে যতটা অসুস্থ হয় মানুষ, তার ভাই তেমনই অসুস্থ।

 

এমন আরও সংবাদ

Back to top button